আঁধার ভেঙ্গে জনির জয়যাত্রা
April 12, 2015
গ্রিন সেভার্সের সবুজ স্বপ্ন
April 22, 2015
Show all

জলঢাকা থেকে জাতিসংঘে কেশব রায়ের স্বপ্নযাত্রা

আঠারো বছর বয়সের দুর্দান্ত সাহসের কথা বলেছেন কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য। সে কথা প্রমাণ করতেই যেন অসাধ্য সাধন করেছে নীলফামারীর আঠারো বছর বয়সী কিশোর কেশব রায়। জলঢাকা বিএম কলেজ পড়ুয়া কেশব প্রথমবারের মতো জয় করেছে বৈশ্বিক শিক্ষা বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ এনভয় কর্তৃক প্রবর্তিত “ইয়ুথ কারেজ অ্যাওয়ার্ড ফর এডুকেশন।” পুরস্কার জয়ী অন্য সাত জনের মধ্যে কেশবই একমাত্র কিশোর। জাতিসংঘ ঘোষিত “মালালা ডে”তে পুরস্কারটি ঘোষিত হয় নিউইয়র্কস্থ জাতিসংঘের সদরদপ্তর থেকে।

20.-Keshob-Roy
বিশ্বব্যাপী শিক্ষাপ্রসারে সাহসীভাবে কাজ করে যাওয়া কিশোর-কিশোরীদের স্বীকৃতি জানাতে জাতিসংঘ এই বিশেষ অ্যাওয়ার্ডটি প্রবর্তন করে। শিক্ষা বিস্তারে সংগ্রামরত অসম সাহসী কেশব রায়কে চিনতে ভুল হয়নি বিচারকদের। সাবেক বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমানে জাতিসংঘ মহাসচিবের বৈশ্বিক শিক্ষা বিষয়ক বিশেষ দূত গর্ডন ব্রাউন কেশব রায়কে লেখা এক চিঠিতে লিখছেন, “আমি তোমাকে অভিনন্দন জানাতে চাই জাতিসংঘের বিশেষ দূতের ‘ইয়ুথ কারেজ অ্যাওয়ার্ড ফর এডুকেশন’ এর একজন বিজয়ী হিসেবে। প্রতিটি শিশুর স্কুলে যাবার অধিকারের সপক্ষে দাঁড়ানোয় তোমায় অভিবাদন। আমি বলতে চাই বিশ্বব্যাপী তরুণদের মাঝে তুমি কেবল একজন নেতাই নও বরং আদর্শও।” কেশব রায় কৈ মারী ইউনিয়নের “রংধনু শিশু ফোরাম” এর সভাপতি। প্রতিষ্ঠানটির নেপথ্য পৃষ্ঠপোষকতায় রয়েছে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ। বর্তমানে সে তার ইউনিয়নে শিক্ষা প্রসার ও বাল্য বিবাহ বন্ধের কাজে নিয়োজিত রয়েছে। ‘আমি ও রংধনু শিশু ফোরামের অন্য সদস্যরা মানুষের বাড়ি বাড়ি যাই, মিটিং করি, রাস্তায় র‌্যালি করি ও পথনাটকের মাধ্যমে অভিভাবকদের বোঝাই যেন তারা সন্তানদের স্কুলে পাঠায়।” পড়াশোনা শেষ করে কেশব শিশুদের জন্য কাজ করতে চায়। স্বাপ্নিক চোখে বোনে শিক্ষিত আগামীর স্বপ্ন। সে স্বপ্নের শেকড় যেন আঠারো বছর বয়স।

কেশব রায়
অনার্স ১ম বর্ষে অধ্যয়নরত
গ্রাম: বিন্যাকুরি, উপজেলা: জলঢাকা
জেলা: নীলফামারী