প্রতিবন্ধী আফজালের আত্মনির্ভরশীলতার গল্প
April 22, 2015
আলো ছড়াচ্ছে আশার আলো পাঠশালা
April 22, 2015
Show all

সায়েন্সের জন্য কাজ করছে ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব

“সোনার বাংলা” গড়ার ঐকান্তিক স্বপ্নের বাস্তবায়নের জন্য বিকল্প নেই বিজ্ঞান চর্চার। শহুরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিজ্ঞান চর্চার ব্যবস্থা মোটামুটি সন্তোষজনক হলেও মফস্বলে তা এখনো সুদূরপরাহত। ফলে শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। এই নিদারুণ শূন্যতা কাটিয়ে বিজ্ঞানমনস্ক প্রজন্ম নির্মাণে কাজ করে যাচ্ছে সিরাজগঞ্জের “ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব”। শিক্ষার্থীদের মাঝে বিজ্ঞানপ্রীতি জন্মানোর এই শুভ উদ্যোগ ইতোমধ্যে ভূয়সী প্রশংসা অর্জনে সক্ষম হয়েছে।
24.-K-M-Moshiur-Rahman24.-K-M-Moshiur-Rahman2দু’জন বিজ্ঞানমনস্ক ছাত্রের উদ্যোগে “ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব” এর জন্ম ২০১৩ সালে। প্রতিষ্ঠার সময় তাঁরা লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলেন যে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিজ্ঞান চর্চার প্রসার ঘটাবেন। মূলত পরিচালকদ্বয়ের অর্থে পরিচালিত প্রতিষ্ঠানটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে তাদের কর্মক্ষেত্র সিরাজগঞ্জের পাশাপাশি সারাদেশের শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে গেছে। ফলে শিক্ষার্থীরা নিজেদের ভেতর বিজ্ঞান বিষয়ক চিন্তার মিথস্ক্রিয়া ঘটাতে পারছেন। স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীদের মাঝে “ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব” যথেষ্ঠ আগ্রহের জন্ম দিতে সক্ষম হয়েছে। বিজ্ঞানের বিভিন্ন প্রয়োগিক দিক তাঁরা খেলাচ্ছলে শিক্ষার্থীদের মননে প্রবেশ করিয়ে দিতে পেরেছেন। ফলে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান চেতনা শানিত হচ্ছে। মফস্বলের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের লড়তে হচ্ছে বিভিন্ন সামাজিক সমস্যার বিপরীতে। মাদকের নীল ছোবল থেকে তাদের বিরত রাখতে “ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব” অসামান্য ভূমিকা পালন করছে। তাঁরা সমাজের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের মাঝে বিজ্ঞান চর্চার উপকরণ দিয়ে তাদের মূলধারার সাথে যুক্ত করার প্রয়াস নিয়েছেন। ইতোমধ্যে ক্লাবটির সাফল্য পতাকা জাতীয় পর্যায়ে স্থাপিত হয়ে গেছে। ২০১৪ সালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী কর্তৃক আয়োজিত “জাতীয় বিজ্ঞান প্রতিযোগিতায়” ক্লাবটির ক্ষুদে বিজ্ঞানীরা যথাক্রমে উপজেলা, জেলা, বিভাগীয় এবং জাতীয় পর্যায়ে প্রথম স্থান অর্জন করে তাঁদের কাজের সার্থকতা প্রমাণ করেছেন। কর্মক্ষেত্র হিসেবে মফস্বলকে বেছে নিলেও তাঁরা দেখিয়ে দিয়েছেন উপযুক্ত পৃষ্ঠপোষকতা পেলে তাদের শিক্ষার্থীরাও দেশের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ছাড়িয়ে গিয়ে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট মাথায় চাপাতে পারে। ২০১৫ সালেও “জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতায়” উপজেলা, জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করে ক্লাবের সদস্য সারোয়ার হোসেন। এছাড়াও ২০১৪ সালে “জাতীয় বিজ্ঞান মেলায়” জুনিয়র গ্রুপ থেকে প্রথম ও তৃতীয় এবং সিনিয়র গ্রুপ থেকে তৃতীয় স্থান অধিকার করে ক্লাবটি।

বিজ্ঞান চর্চার প্রসার ঘটিয়ে একটি সমৃদ্ধ আগামীর স্বপ্নবীজ বুনেছে “ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব”। যা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যেয়ের সাথে আগাগোড়া সঙ্গতিপূর্ণ। এর ফলে গড়ে উঠছে এক বিজ্ঞান সচেতন আগামী প্রজন্ম যারা এদেশে বিজ্ঞানের নব জাগরণে নেতৃত্ব দিয়ে সমৃদ্ধ ভবিষ্যৎ নির্মাণ করবে। “ট্যালেন্ট সায়েন্স ক্লাব” সে স্বপ্নটা বুকে রেখেই কাজ করে চলছে নিভৃতে।

কে এম মশিউর রহমান সংলাপ
এইচ এস সি
জানপুর ব্রীজের উত্তর পাশে
মুজিব সড়ক, সিরাজগঞ্জ