চাঁদের আলোয় কয়েকজন আলোকিত যুবক
April 30, 2015
রাহাত হোসেন পল্লব: একজন আলোর অভিযাত্রী
April 30, 2015
Show all

ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের জন্য কর্মমুখী শিক্ষা মিলছে

ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে সৃষ্টি হয় অবর্ণনীয় হতাশার। অধিকাংশ সময় তাঁদের ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয় না। ফলে জীবনের চৌকাঠে হোঁচট খেতে খেতে একটা গড়পরতা জীবন আস্বাদন করে তারা পথ চলে। এসব শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ করার মতো প্রতিষ্ঠানের অভাবে অকালেই ভবিষ্যতের আলো থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। গোপালগঞ্জের হরিদাসপুর রয়াল টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ এগিয়ে এসেছে এমন শিক্ষার্থীদের কর্মমুখী শিক্ষায় শিক্ষিত করে তাঁদের ভবিষ্যত জীবিকার ব্যবস্থা করিয়ে দেয়ায়। ইতোমধ্যে তাঁদের কাজের মাধ্যমে উপার্জনের ব্যবস্থা হয়েছে অসংখ্য ছাত্রছাত্রীর।

গোপালগঞ্জ জেলার বেকারত্বসহ যুব সমাজের নানাবিধ সমস্যা নিয়ে কাজ করে চলছে “হরিদাসপুর রয়াল টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ”। তারা মূলত ঝরে পরা শিক্ষার্থীদের মাঝে কর্মমুখী শিক্ষার ব্যবস্থা করে থাকেন। ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানটি থেকে পাশ করে অনেকেই এখন নিজের আয়ের ব্যবস্থা করে নিয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি কাজ পেতে সাহায্যও করেছে তাঁদের শিক্ষার্থীদের। প্রতিবছর ৬০ জন ছাত্র ছাত্রী এই বিদ্যালয় থেকে শিক্ষাগ্রহণ করে থাকে। ফলে এলাকায় বেকার সমস্যার সমাধান হয়েছে উল্লেখযোগ্যভাবে। পাশাপাশি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কৃষি সংক্রান্ত আধুনিক প্রযুক্তির যাবতীয় খবরা খবর প্রজেক্টরের মাধ্যমে স্থানীয় কৃষকের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন। কৃষকেরা তাঁদের জমিতে সে প্রযুক্তি ব্যবহার করে ফলন বাড়িয়ে নিতে পারছেন। কৃষকেরা অনেক সময় জমিতে ক্ষতিকর রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার করে পরিবেশের ক্ষতি করে থাকেন নিজেদের অজান্তেই। তাঁরা এর ক্ষতিকরতা সম্পর্কে কৃষকদের বুঝিয়ে থাকেন। এজন্য আয়োজন করেন কর্মশালার। মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানটির অবস্থান সুস্পষ্ট। তাঁরা নিয়মিত যুবকদের মাঝে মাদকবিরোধী প্রচারনা চালিয়ে থাকেন। এছাড়াও বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধেও রুখে দাঁড়িয়েছেন তাঁরা। সেজন্য সচেতনতা সৃষ্টির পাশপাশি নানাবিধ তৎপরতার মাধ্যমে তাঁরা বাল্যবিবাহের পরিমান কমিয়ে এনেছেন এলাকায়।

“হরিদাসপুর রয়াল টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ” একতি আদর্শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা পালন করছে। মানুষ গড়ার পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে বেকার সমস্যার সমাধান, কৃষি, মাদক, বাল্যবিবাহ ইত্যাদি নিয়ে কাজ করে সমাজ সচেতনতার পরিচয় দিয়েছে। জ্ঞাপন করেছে নিজেদের অটুট প্রতিজ্ঞার কথা যা কেবল অসামান্য প্রয়াস হিসেবেই চিহ্নিত হতে পারে। জয়তু এমন প্রচেষ্টার! এমন মহান প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত মানুষেরাই আগামীর দৃপ্ত পথচলা নিশ্চিত করে মসৃণ করবেন বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া।