(880)-2-9111260

Blog

নিরাপদ বিশ্ব সবুজ অরণ্য নিশ্চিত করবে দুর্জয় তারুণ্য, ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস, বরিশাল

“নিরাপদ বিশ্ব সবুজ অরণ্য নিশ্চিত করবে দুর্জয় তারুণ্য” এই স্লোগান কে সামনে রেখে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাব মোকাবেলা ও সংকট উত্তরণে কাজ করে যাচ্ছে “ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস”। উন্নত দেশগুলোর গ্রিন হাউজ গ্যাস নিঃসরণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ায় পৃথীবীর মানুষের জীবনকে ব্যাপকভাবে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে। বদলে যাচ্ছে জলবায়ু উত্তপ্ত হচ্ছে ভূপৃষ্ট ও সমুদ্র, বরফ গলে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে। বিভিন্ন এলাকার পানি এবং শস্য জমিতে বাড়ছে লবণাক্ততা নদী ও সমুদ্রের তীর ভেঙ্গে ভেসে যাচ্ছে ঘরবাড়ি। প্রায়শই দেখা দিচ্ছে হারিকেন, সিডর, আয়লা, ফণীর মত প্রলয়ঙ্কারী দুর্যোগ যা লন্ড ভন্ড করে দিচ্ছে জীবন ও জনপদ।

বৈশ্বিক উষ্ণায়ন বা জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য বাংলাদেশের দায় একেবারে নগণ্য হলেও এর নেতীবাচক প্রভাবের কারনে বিশ্বে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম আমাদের এই প্রিয় বাংলাদেশ। বাংলাদেশে প্রাকৃতিক দুর্যোদের প্রবণতা এবং মাত্রা উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় আমাদের জীবন- জীবিকা ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে। অনেক মানুষ বাস্তুচ্যুত হতে বাধ্য হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তন আমাদের কৃষি ও জীব বৈচিত্রকে বিপর্যস্ত করে খাদ্য ও পুষ্টির নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছে। তাই আমাদের তরুনদের প্রিয় মাতৃভূমির পাশে দাঁড়ানোর এটাই গুরুত্বপূর্ণ সময়। বর্তমানে তরুনরা ভাবছে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়টি উন্নত দেশগুলোর গোল টেবিলের মধ্যে কিংবা তাদের রাজনীতি করার অন্যতম বিষয় বস্তু এখন আর নয়। এটি নিয়ে ভাবতে চায় বাংলাদেশের তরুনরাও।

জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এবং টেকসই উন্নয়ন নিশ্চত করতে তরুনরা সচেষ্ট তা প্রমান করেছে বরিশাল বিভাগের এক ঝাঁক তরুণ। উপকূলীয় এবং প্রত্যন্ত চরাঞ্চলের প্রামাণ্য চিত্র ধারনের জন্য ২০১৬ সালে এক দল তরুন পটুয়াখালির রাঙ্গাবালির চরে যায়। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে দুর্গম দ্বীপসমূহ এবং উপকূলীয় অঞ্চলের অবস্থা শোচনীয় সেখানকার মানুষের দুরঅবস্থা দেখে জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেয় এবং গঠন করেন ’’ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস” নামক একটি ইয়ুথ নেটওয়ার্ক। ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস ২০১৬ সাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের ন্যায্য অধিকার আদায়ে বিভিন্নমূখি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে। সংগঠনটি বর্তমানে বরিশাল বিভাগের সব কয়টি জেলায় ১৫০০ স্বেচ্ছাসেবকদের সমন্বয়ে কাজ করছে।

সংগঠনটি বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাধ্যমে উপকূলীয় এবং প্রত্যন্ত চরাঞ্চলের তরুনদের দক্ষতা ও তাদের ক্ষমতায়িত করছে। যার মাধ্যমে তারা উপকূলীয় এবং প্রত্যন্ত চরাঞ্চলের জনগোষ্টির মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করছে। যেকোন ধরনের দুর্যোগ মোকাবেলায় আগাম সর্তিকী করন সহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তৃণমূলের তরুন প্রতিনিধিদের সম্বন্বয়ে সংগঠনটি ২০১৭ সালে তৈরি করেছে যুব জলবায়ু ঘোষনা পত্র। যে যুব ঘোষণাপত্রটি মাননিয় ডেপুটি স্পিকার মহোদয় এবং পরিবেশ সর্ম্পকৃত সংসদীয় স্থায়ি কমিটির (মাননীয় সংসদ) সদস্যদের সামনে উপস্থাপন করা হয়। জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে বাংলাদের ন্যায্য ক্ষতিপূরন আদায়েও কাজ করছে সংগঠনটি। কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের সভায় ইয়ুথ নেটের প্রতিনিধি হিসাবে অংশগ্রহন করে সোহানুর রহমান।

সুইডেনের ১৫ বছরের কিশোরী গ্রেটা থুনবার্গ জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকির বিরুদ্ধে প্রথম জলবায়ু আন্দোলনের ডাক দেন। সারা বিশ্বের সাথে একত্ব হয়ে বাংলাদেশে একমাত্র ইয়ুথ নেট চলতি বছর জলবায়ু আন্দোলনে অংশগ্রহন করেন এবং বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। কাজের স্কৃতিসরূপ সংগঠনটি অর্জন করেছে বিভিন্ন দেশী ও বিদেশি সম্মাননা। ২০১৮ সালে জয় বাংলা ইয়ূথ এ্যাওর্য়াড সংগঠনটির অন্যতম একটি বড় অর্জন। জয় বাংলা ইয়ূথ এ্যাওর্য়াড প্রাপ্তির ফলে ইয়ুথ নেটের কাজের গতিশীলতা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশের সব থেকে বড় একটি প্লার্টফর্মের সাথে যুক্ত হওয়ায় তারা ইয়াং বাংলার প্রতি কৃতজ্ঞ।

“ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস” এর প্রধান সমন্বয়কারি শাকিলা ইসলাম বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে রোল মডেল হিসাবে পরিচিত হবে এবং একটি সবুজ ও নিরাপদ বাংলাদেশ নিশ্চিত হবে। তিনি আরও বলেন জলবায়ু পরিবর্তন শুধু একটি অর্থনৈতিক বা উন্নয়ন সমস্যা নয়, এটি একটি নৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক সমস্যাও যা প্রকারান্তে বৈশিক মানবিক সংকটে পরিনত হচ্ছে।