(880)-2-9111260

Blog

হাওরে হাসি ফোটাতে কাজ করছে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা

বছর বছর অকালবন্যায় ফসলহানীই হয়ে উঠছিল হাওরবাসীর নিয়তি। চোখের সামনে বড় গৃহস্থ পরিবারের হয়ে পড়ছিল পথের ভিখারি। এসব অনেক ঘটনা ভাবিয়ে তুলছিল সিলেটে বসবাসরত তরুণ কাসমির রেজা ও তার মতো হাওর এলাকা থেকে বেড়ে উঠা সমব্যাথী কিছু বন্ধু,পরিচিতজনদের। সেই ভাবনা থেকে ২০১০ সালে তারা গঠন করলেন ’পরিবেশ হাওর উন্নয়ন সংস্থা’।

প্রতিষ্ঠাকাল থেকে ঢাকা, সিলেট, সুনামগঞ্জ সহ নানা জায়গায় সেমিনারের মাধ্যমে সরকারের শীর্ষ মহল এবং দেশবাসির সামনে সংস্থাটি তুলে ধরছে হাওর সমস্যার কারণ ও প্রতিকার নিয়ে নানা উপস্থাপনা। প্রতিষ্ঠার পরপরই ২০১১ সালের শুরুতে টাঙুয়ার হাওর পাড়ে পৈন্ডুব বাজারে একটি হাওর সমাবেশ করে সংগঠনটি। সমাবেশে উপস্থাপিত হাওরবাসীর নানা পরামর্শ সুনামগঞ্জে একটি সাংবাদিক সম্মেলনে দেশবাসীর সামনে তুলে ধরা হয়। তখন সংগঠনের পক্ষ থেকে হাওর সমস্যার সমাধানে একটি হাওর উন্নয়ন মহাপরিকল্পনা গ্রহণের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানানো হয়। সরকার ২০১২ সালে ২০ বছর মেয়াদি একটি হাওর উন্নয়ন মহাপরিকল্পনা গ্রহন করেন।

১১ অক্টোবর ২০১৮ সালে হাওরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় একটি জেলে ও কৃষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় সুনামগঞ্জের টাংগুয়ার হাওর পাড়ে। সম্মেলনটি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্মেলনে অংশ নিয়ে হাজার হাজার কৃষক ও জেলে তাদের নানা দাবি দাওয়া এবং সমস্যার কথা তুলে ধরে। পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা মনে করে, হাওর সমস্যার কার্যকর সমাধানে হাওরের কৃষকরাই দিতে পারে সঠিক পরামর্শ। তাই হাওরবাসীর সমস্যা ও সমাধানের কথা দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে সংস্থাটি ২৭ জুলাই ২০১৭ তারিখে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে একটি কৃষক সমাবেশের আয়োজন করে। এছাড়াও সরকারের শীর্ষকর্তাদেরকে হাওরবাসীর কষ্ট সরাসরি শোনানোর লক্ষ্যে ১২ অক্টোবর সুনামগঞ্জের মধ্যনগরে ’কৃষকের হাওর ভাবনা’ শীর্ষক এক সমাবেশের আয়োজন করে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা। এ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন এলাকার জনপ্রতিনিধি ও পাঁচ সহস্রাধিক কৃষক। এর পরপরই সরকার হাওরের বাঁধ নির্মাণে ’ কাবিটা নীতিমালা -২০১৭’ সংশোধন করে। নীতিতে সমাবেশে প্রস্তাবিত প্রবন্ধের ও কৃষকদের উপস্থাপিত অনেক দাবির প্রতিফলন দেখা যায়।

বিভিন্ন সামাজিক সংস্থা ও কর্পোরেট ফার্মের সহযোগিতায় পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের প্রায় দশ হাজার পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে। এছাড়াও সুনামগঞ্জের পর্যটন শিল্পের বিকাশের লক্ষ্যে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহন করে।

হাওরের সুবিধা বঞ্চিত মানুষের জীবনমান উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় ২০১৮ সালে জয় বাংলা ইয়ূথ এওয়ার্ডের সেরা দশে স্থান করে নেয় পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা। সংস্থার এই পথচলা কন্টকমুক্ত নয়। হাওরে সংগঠিত বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে কথা বলতে গিয়ে অনেক বাধার মুখে পড়তে হয়েছে। তবু হাওরবাসীর কল্যাণে কাজ করে যেতে বদ্ধ পরিকর পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা ।