(880)-2-9111260

Blog

সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র, সাতক্ষীরা

২০১৩ সালের শেষের দিকে প্রতিষ্ঠিত হয় সাতক্ষীরার সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র। ৫০ জন ভলান্টিয়ার নিয়ে মুকুল ইসলাম “Solidaridad Network Asia” – র মাধ্যমে আধুনিক ও নিরাপদ পদ্ধতিতে মাঠ পর্যায়ে চাষীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু করে। সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র থেকে পাওয়া এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অর্জিত জ্ঞান চাষিরা খামারে ব্যবহারের ফলে সাতক্ষীরা অঞ্চলে চিংড়ি উদপাদন বৃদ্ধি পাওয়া শুরু হয়। তবে এখানে একটি বড় চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয় প্রতিষ্ঠানটির – প্রশিক্ষণের সাথে সাথে চিংড়ি চাষের জন্য গুণগত উপকরণ এর ব্যবস্থা করা।

সঠিক সময়ে ন্যায্যমূল্যে গুণগত উপকরণের প্রাপ্তি একটি অনেক বড় চ্যালেঞ্জ চিংড়ি চাষীদের জন্য। এর একটি অস্থায়ী সমাধান হিসেবে সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্তরা স্থানীয় দোকানদার ও কোম্পানি গুলোর সাথে চিংড়ি চাষীদের সরাসরি পরিচিত হওয়ার ব্যবস্থা করে। এতে করে উৎপাদন এর মান ভালো হলেও উপকরণের অধিক মূল্যের কারণে চাষিদের লাভ তেমন ছিলোনা।

“চিংড়ি উৎপাদনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখা এইসকল চাষিদের জন্য তাই শুধু প্রশিক্ষন নয়, তাদের সমাধানের ব্যবস্থাও আমাদের করতে হবে”- বলেছিলেন মুকুল ইসলাম।

সেখান থেকেই সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র সিদ্ধান্ত নেয় যে চিংড়ি চাষের গুণগত উপকরণ ও পণ্য তারা নিজেরাই চাষিদের জন্য সরবরাহ করবে। সেই সিদ্ধান্ত থেকে সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্রের ১২ জন সদস্য মাসিক ৫০০ টাকা সঞ্চয় ও এককালিন ৫০০০ টাকা জমার মাধ্যমে চাষীদের উপকরণ সরবরাহের ব্যবস্থা শুরু করে। এভাবেই সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র একটি সফল ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান থেকে আরো এক ধাপ এগিয়ে এসে চাষিদের উন্নয়নের লক্ষে সামাজিক ব্যবসায় নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করে।

এরপর সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র কে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। চিংড়ি চাষীদের কাছে একটি সম্মান ও ভরসার জায়গায় তৈরী করার সাথে সাথে এই প্রতিষ্ঠানটির সুনাম ও ব্যবসা আরো বৃদ্ধি পেতে থাকে। সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার ৪ উনিয়নের ১০৯ টি গ্রূপের ৫৮৭৬ সদস্য নিয়ে বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি কাজ করছে।

২০১৪ সলে নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূত সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র উদ্বোধন করেন। সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র তাদের চলমান কার্যক্রমের পাশাপাশি দেশি বিদেশী বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ ও প্রতিষ্ঠানের ফিল্ড পরিদর্শনের এর মাধ্যমে উৎপাদিত চিংড়ির গুণগত মান সম্পর্কে অবহিত করতে থাকে। ২০১৫ সালে তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান “মাটি ও মানুষ” সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্রে উপর একটি ডকুমেন্টারী প্রকাশ করে। ২০১৭ সালে তারা বাংলাদেশ স্টার্ট উপ অ্যাওয়ার্ড এবং ২০১৮ সালে তারা ইয়াং বাংলা আয়োজিত জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে।

সফল চিংড়ি সেবা কেন্দ্র জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চিংড়ি চাষকে সফলভাবে তুলে ধরেছে এবং দেশী উদ্যোক্তাদের কাছে একটি উল্লেখযোগ্য উদাহরণ হিসেবে নিজেদের পরিচিত করেছে।